Site icon ভ্রমণপিপাসু

নীলাদ্রি লেক

নীলাদ্রি লাক Niladri Lake

নীলাদ্রি লাক Niladri Lake

পরিচিতদেরকে জানাতে শেয়ার করুন

নীলাদ্রি লেক (Niladri Lake) বা শহীদ সিরাজ লেক সুনামগঞ্জ জেলার অন্যতম ও আকর্ষণীয় পর্যটন কেন্দ্র। এটি মূলত চুনাপাথরের পরিত্যাক্ত খনির লাইম স্টোন লেক। ভারতের মেঘালয় সীমান্তঘেঁষা বাংলাদেশের  সুনামগঞ্জ  জেলার তাহিরপুরে উপজেলা অবস্থিত টেকেরঘাট (Tekerghat) নামক গ্রামে নীলাদ্রি লেকের অবস্থান। এই লেকের প্রকৃত নাম শহীদ সিরাজ লেক কিন্তু ভ্রমণপিপাসুদের কাছে এই লেক নীলাদ্রি লেক নামেই বেশি পরিচিত। অবশ্য স্থানীয় লোকজনের কাছে টেকেরঘাট পাথর কোয়ারি নামে পরিচিত।  লেকের আকর্ষণীয় ঘন নীল জল, ছোট বড় টিলা আর মেঘালয়ের উঁচু পাহাড় সারির সমন্বয়ে নীলাদ্রি লেককে করেছে অপার্থিব সৌন্দর্য্যের অধিকারী। স্বতন্ত্র বৈশিষ্টের কারণে নিলাদ্রি লেক দেখে ভ্রমনপিপাসু পর্যটকেরা একে বাংলার কাশ্মীর হিসাবে অভিহিত করেন।

নীলাদ্রি লেক  যাবার উপায়

ঢাকা থেকে দুই রুটে নীলাদ্রি লেক ভ্রমণে যেতে পারেন। নিজের সুবিধা মত যেকোন রুটে ব্যাবহার করে নীলাদ্রি লেকে যেতে পারেন।

রুট প্ল্যান – ১

ঢাকার মহাখালী, সায়দেবাদ, গাবতলী ও ফকিরাপুল থেকে এনা, হানিফ ও শ্যামলী পরিবহনের বাস নিয়মিত সুনামগঞ্জ রুটে যাতায়াত করে। নন-এসি এসব বাসে ভাড়া লাগবে ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা। ঢাকা থেকে বাসে সুনামগঞ্জ যেতে সময় লাগে ৬ ঘণ্টা। শুকনো সময়ে সুনামগঞ্জ থেকে লাউড়েরগড় হয়ে অথবা তাহিরপুর হয়ে নীলাদ্রি লেক যাওয়া যায। আপনি যেভাবেই  যান সময় লাগবে প্রায় ২ঘন্টা। সারাদিনের জন্যে গাড়ি রিসার্ভ করলে নীলাদ্রি লেক সহ আশেপাশের অন্যান্য জায়গাও ঘুরে দেখতে পারবেন। মোটরসাইকেলে ২জন যেতে পারবেন, সারাদিনের জন্যে ভাড়া লাগবে ১০০০-১৫০০ টাকা এবং সিএনজিতে ১৫০০-২০০০ টাকা। আপনি যদি খরচ কমাতে চান তাহলে সুনামগঞ্জ থেকে বাইকে বা সিএনজিতে লাউড়েরগড় পর্যন্ত গিয়ে নৌকায় নদী পার হয়ে যেতে পারবেন নীলাদ্রি লেক।

ঢাকা টু সুনামগঞ্জ বাস সার্ভিস 

এনা ট্রান্সপোর্ট মহাখালি কাউন্টার 01760-737650, ফকিরাপুল কাউন্টার  01869-802736, মীরপুর কাউন্টার 01869-802731, আব্দুল্লাহপুর কাউন্টার  01869-802729, সায়েদাবাদ কাউন্টার 01869-802738

শ্যামলী পরিবহন – ভাড়া ৫৫০ টাকা। গাবতলী কাউন্টার 01865-068925, আসাদগেট কাউন্টার  01714-619173, কল্যাণপুর কাউন্টার 01716-478951, সায়েদাবাদ কাউন্টার 02-7541336, ফকিরাপুল কাউন্টার 02-7193725

হানিফ এন্টারপ্রাইজ – ভাড়া ৫৫০ টাকা। কল্যণপুর কাউন্টার 01713-049540, শ্যামলী কাউন্টার  01713-402639, গাবতলী কাউন্টার 02-9012902, ফকিরাপুল কাউন্টার  02-7191512, সায়েদাবাদ কাউন্টার 01713-402673

মামুন এন্টারপ্রাইজ – ভাড়া ৬০০ টাকা। সায়েদাবাদ কাউন্টার 01711-337851, 01783-877560, ফকিরাপুল কাউন্টার 01783-877562, আব্দুল্লাহপুর কাউন্টার 01783-877563, গাবতলী কাউন্টার 01958-454238

আরও পড়ুনঃ ভোলাগঞ্জ সাদা পাথর ভ্রমণ গাইড

রুট প্ল্যান – ২

ঢাকা থেকে হাওর এক্সপ্রেস ও  মোহনগঞ্জ এক্সপ্রেস দুইটি আন্তঃনগর ট্রেন যথাক্রমে রাত ১০ টা ১৫ মিনিটে ও দুপুর ১ টা ১৫ মিনিটে নেত্রকোনার মোহনগঞ্জের অভিমুখে চলাচল করে। এই ট্রেনে ২২০-৮০৯ টাকা ভাড়ায় যাওয়া যায়। মোহনগঞ্জ থেকে মধ্যনগর যেতে ঘন্টা খানেক সময় লাগে। মধ্যনগর (পিপরা কান্দা ঘাট) থেকে বর্ষাকালে স্পিডবোট, ট্রলার, বা ইঞ্জিন চালিত নৌকা দিয়ে টেকেরঘাট যাওয়া যায়। আবার নেত্রকোনা থেকেও সরাসরি ট্রলার বা ইঞ্জিন চালিত নৌকা ভাড়া করে টেকেরঘাট যাওয়া যায়। তবে শীতকালে বা শুকনা মৌসুমে নেত্রকোনা থেকে টেকেরঘাট যেতে হয় মোটরসাইকেল দিয়ে।

ঢাকা টু মোহনগঞ্জ রুটে ২টি আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল করে

হাওর এক্সপ্রেস (৭৭৭) – ছাড়ায় সময় ২২ঃ১৫ পৌছানোর সময় ০৪ঃ০০ (বুধবার বন্ধ)

মোহনগঞ্জ এক্সপ্রেস (৭৮৯) – ছাড়ায় সময় ১৪ঃ২০ পৌছানোর সময় ২০ঃ১০ (সোমবার বন্ধ)

রুট প্ল্যান – ৩

বর্ষাকালে আপনি ভিন্ন পথে টেকেরঘাট যেতে পারবেন। সুনামগঞ্জ থেকে টাংগুয়ার হাওর হয়ে টেকেরঘাট যেতে পারবেন স্পিডবোট, ট্রলার, বা ইঞ্জিন চালিত নৌকা দিয়ে। সুনামগঞ্জ নেমে সুরমা নদীর বড় ব্রীজের কাছে থেকে সিএনজি, লেগুনা ও বাইকে করে সহজেই তাহিরপুরে যাওয়া যায়। তাহিরপুরে নৌকা ঘাট থেকে সাইজ এবং আপনার সামর্থ অনুযায়ী নৌকা ভাড়া করে টাংগুয়ার হাওর দেখে টেকেরঘাট যেতে পারবেন।

রুট প্ল্যান – ৪

আপনি যদি বাইক নিয়ে ভ্রমণ করেত ভালোবাসেন। কিংবা নিজের বাইকে করে নীলাদ্রি লেক ভ্রমণ করতে চান। তাহলে বসন্ত কালের শুরুর দিকে নেত্রকোনা জেলার কলমাকান্দা উপজেলার পাঁচগাও বর্ডার রোড ধরে নীলাদ্রি লেক যেতে পারবেন। তবে এই রাস্তা ব্যবহার করলে অনেকটা কষ্ট করেই পৌঁছাতে হবে নীলাদ্রি লেক। এই পথে গেলে পাঁচগাও থেকে নীলাদ্রি লেক পর্যন্ত সম্পূর্ণ রাস্তাটা মেঘালয়ের পাহাড় ঘেঁষা। পাহাড়ের সৌন্দর্য দেখতে দেখতে কখন যে নীলাদ্রি লেক পৌঁছে যাবেন বুঝতেই পারবেন না।

নীলাদ্রি লেক ভ্রমণ পরিকল্পনা

নীলাদ্রী লেক, বারেক টিলা, যাদুকাটা নদী, শিমুল বাগান (Shimul Garden) এবং টাঙ্গুয়ার হাওরের দূরত্ব খুব কাছাকাছি হওয়ায় আপনি চাইলে সময় ভাগ করে পছন্দের জায়গাগুলো ভ্রমন করতে পারবেন। সাধারনত বর্ষাকালে টাঙ্গুয়ার হাওর (Tanguar haor) ভ্রমণ বেশি আকর্ষণীয় ও উপভোগ্য। তাই বর্ষাকালে টাঙ্গুয়ার হাওর সহ নীলাদ্রী লেক, বারেক টিলা, যাদুকাটা নদী, শিমুল বাগান, ভ্রমণ করতে ভ্রমণপিপাসুর টাঙ্গুয়ার হাওর ভ্রমণ পরিকল্পনা দেখে নিতে পারেন।

এছাড়া শুকনা মৌসুমে কিংবা একদিনে নীলাদ্রী লেক, বারেক টিলা, যাদুকাটা নদী (Jadukata River), শিমুল বাগান ভ্রমণ করতে চাইলে সুনামগঞ্জ শহর থেকে বাইক রিজার্ভ করে বারেক টিলা, যাদুকাটা নদী, শিমুল বাগান হয়ে নীলাদ্রী লেক ঘুরে আবার সুনামগঞ্জ ফিরে আসতে পারবেন। এক্ষেত্রে সিজনভেদে বাইক ভাড়া লাগবে ১০০০ থেকে ১২০০ টাকা এবং প্রতিটি বাইকে দুইজন ভ্রমণ করতে পারবেন।

আপনি চাইলে আলাদাভাবে উল্লেখিত স্থানগুলো ভ্রমণ করতে পারবেন। সুনামগঞ্জ থেকে বাইকে ২০০ টাকা ভাড়ায় এক থেকে দেড় ঘন্টায় লাউড়ের গড় পৌঁছে ছোট নৌকায় যাদুকাটা নদী পাড় হয়ে সহজেই বারেক টিলায় যেতে পারবেন। আর বারেক টিলা থেকেই যাদুকাটা নদীর অপরুপ সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে পারবেন। বারেক টিলা থেকে শিমুল বাগান ও নীলাদ্রী লেক যাওয়ার বাইক ভাড়া পাওয়া যায়। শিমুল বাগান ও নীলাদ্রী লেক একসাথে ভ্রমণের জন্য বাইক রিজার্ভ করতে ১৫০ থেকে ২০০ টাকা লাগবে। শিমুল বাগান ও নীলাদ্রী লেক দেখে সুনামগঞ্জ শহরে ফিরে যেতে  আপনাকে আবার একই পথে যাত্রা করতে হবে। তাই খুব সকালে ভ্রমণে বের হলে স্বাচ্ছন্দে সবগুলো জায়গা ভ্রমণ করতে পারবেন।

আরও পড়ুনঃ জাফলং ভ্রমণ গাইড

আশেপাশে দর্শনীয় স্থান

নীলাদ্রি লেক ঘুরতে যাওয়া ভ্রমনপিপাসুরা চাইলে সুনামগঞ্জ জেলার আরও কিছু দর্শনীয় স্থান একসাথেই ঘুরে দেখতে পারবেন। আপনার হাতে সময় থাকলে ও অন্যান্য সুযোগ সুবিধা বিবেচনা করে আপনার ভ্রমণ পরিকল্পনা সাজিয়ে নিতে পারবেন। একদিনে আপনি ঘুরে দেখতে পারবেন যাদুকাটা নদী, বারিক টিলা, ও শিমুল বাগান

থাকবেন যেখানে

নীলাদ্রি লেকের কাছাকাছি থাকার মত তেমন ভালো মানের কোন হোটেল নেই। যদি থাকতেই হয় তাহলে টেকেরঘাট নীলাদ্রী লেকের কাছে বড়ছড়া বাজারের হোটেল খন্দকার, হোটেল নিলাদ্রি অথবা মেঘালয়া গেস্ট হাউজে ৬০০ থেকে ১০০০ টাকায় রুম পাওয়া যায়। এছাড়া শিমুল বাগানের কাছে বাদাঘাট বাজারের আল মদিয়া হোটেল তুলনামূলক ভালো। কিন্তু আপনি যদি ভালো পরিবেশে থাকতে চান তাহলে আপনাকে সুনামগঞ্জ শহরে থাকতে হবে। সেখানে আপনি ৮০০ টাকা থেকে ৩০০০ টাকার মধ্যে বিভিন্ন মানের আবাসিক হোটেল রয়েছে।

সুনামগঞ্জ আবাসিক হোটেল 

খন্দকার হোটেল – বড়ছড়া বাজার, টেকেরঘাট, তাহিরপুর, সুনামগঞ্জ। যোগাযোগ 01740-311810

হোটেল নিলাদ্রি – টেকেরঘাট, তাহিরপুর, সুনামগঞ্জ। যোগাযোগ 01737-601684 

হাওর বিলাস গেস্ট হউস – হাজিরপাড়া সুনামগঞ্জ। যোগাযোগ 01716-388439

নূরানী হোটেল – সুনামগঞ্জ শহরের পুরাতন স্টেশনে অবস্থিত। যোগাযোগ 0871-55346

ওমর হোটেল – সুনামগঞ্জ পৌরসভার স্টেশন রোডে অবস্থিত। যোগাযোগ 01746-863300

হোটেল প্যালেস – সুনামগঞ্জ পৌরসভাস্থ স্টেশন রোডে অবস্থিত। যোগাযোগ 0871-55341

মিজান হোটেল – সুনামগঞ্জ পৌরসভাস্থ জগন্নাথ মন্দিরের পাশে অবস্থিত। যোগাযোগ 01765-308848

সুরমা ভ্যালি রেসিডেন্সিয়াল রিসোর্ট – পুরাতন বাসস্টেন্ড, স্টেশন রোড, সুনামগঞ্জ। যোগাযোগ 01763-880028

রয়েল ইন – পুরাতন বাস স্টেন্ড, সুনামগঞ্জ। যোগাযোগ 01792-873355

সারপিনিয়া হোটেল – জগন্নাতবাড়ি রোড, সুনামগঞ্জ। যোগাযোগ 0871-55278

নীলাদ্রি লেক খাবেন যেখানে

এখানে তেমন ভালো মানের হোটেল নেই। নীলাদ্রী লেকের কাছে বড়ছড়া বাজারের কিছু খাবার দোকান পাবেন, প্রয়োজনে সেখানে খেতে পারবেন। এছাড়া বারিক টিলার নিচে, লাউড়েরগর বাজার ও বাদাঘাট বাজারে কিছু মোটামুটি মানের দেশীয় খাবার হোটেল আছে। খুব ভালো মানের খাবার আশা করা ঠিক হবে না। তবে স্থানীয় তাজা সবজী, হাওরের নানা রকম মাছ, ভর্তা ভাজির নানা পদের খাবারের স্বাদ খুব খারাপ হবেনা

নীলাদ্রি লেক ভ্রমণে জরুরী পরামর্শ


পরিচিতদেরকে জানাতে শেয়ার করুন
Exit mobile version